শনিবার, ২ মার্চ, ২০২৪

নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে ৩০ দল, ২৭৪১ মনোনয়নপত্র দাখিল

নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে ৩০ দল, ২৭৪১ মনোনয়নপত্র দাখিল

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সারাদেশে ৩শ আসনে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন ২ হাজার ৭৪১ জন । নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন ৩০টি রাজনৈতিক দল। বৃহস্পতিবার রাতে ইসির পরিচালক (জনসংযোগ) মো. শরিফুল আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ছিল বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

এরআগে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩ হাজার ৬৫ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে ইসি সচিব জাহাংগীর আলম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, পূর্বনিধারিত তারিখ ৩০ নভেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন ছিল। মনোনয়নপত্র দাখিলের সময়সীমা আর বাড়ানো হবে না, বাড়ানোর সুযোগ নেই। এদিকে বিএনপি ও তাদের সমমনা দলের জোটের শরীকরা নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের একদফা দাবিতে নির্বাচন বর্জন করেছে।

ইসি সূত্রে জানা গেছে, দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার জন্য ৩৬৯ জন নিবন্ধন করলেও শেষ দিনে (বৃহস্পতিবার) বিকাল ৫টা পর্যন্ত অনলাইনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ২১ জন।

নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, ৩০ নভেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন। মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৭ ডিসেম্বর। ১৮ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ হবে। আর প্রচার শেষ করতে হবে ভোটের ৪৮ ঘণ্টা আগে। আর আগামী ৭ জানুয়ারি ভোটগ্রহণ হবে।

এদিকে শেষ দিনে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের একাধিক হেভিওয়েট নেতারা। এরমধ্যে আমির হোসেন আমু, তোফায়েলসহ অনেকেই রয়েছেন। বিশেষ করে স্পিকার, হুইপ সামশুল হক চৌধুরী, খাদ্যমন্ত্রী, রেলমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী, প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী, মাশরাফি ও তোফায়েল আহমেদের ছেলে শাওন রয়েছেন।

ইসির দেয়া তথ্য অনুযায়ী, মোট ভোটারের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬ কোটি ৭ লাখ ৭১ হাজার ৫৭৯ জন। নারী ভোটার ৫ কোটি ৮৯ লাখ ১৯ হাজার ২০২ জন। আর হিজড়া ভোটারের সংখ্যা ৮৫২।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন যা চায়, আমরাও তা-ই চাই: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘আমরা তাদের সঙ্গে একমত। নির্বাচনের বিষয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়ন যা বলেছে, আমরাও তা-ই চাই।’ বৃহস্পতিবার সকালে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক বিফ্রিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। ‘বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চায় বিশ্ব’ ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলি গতকাল এমন মন্তব্য করেছিলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এ নির্বাচন নিয়ে যত বিভ্রান্তি ছড়ানো হয়েছে, যত অপবাদ ছাড়ানো হয়েছে...  অনেকে ভেবেছিল বিদেশি পর্যবেক্ষকরা সাড়া দেবেন না। কিন্তু ইতোমধ্যে শতাধিক পর্যবেক্ষক সাড়া দিয়েছেন। এ নিয়ে আমরা চিন্তিত নই।’

কাদের বলেন, নির্বাচনে জাতিসংঘ পর্যবেক্ষক না পাঠালেও যুক্তরাষ্ট্র ও কমনওয়েলথসহ অনেকে পাঠাচ্ছে। এ পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনে প্রায় শতাধিক পর্যবেক্ষকের নাম চলে এসেছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, পিটার হাস মার্কিন রাষ্ট্রদূত হিসেবে তার আচরণের সীমা মেনে চলবেন বলে আশা করে সরকার। আর জোটের আসন নিয়ে শরিকদের হতাশ করবে না আওয়ামী লীগ। নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, বিএনপি তাদের শেষ কথা বলে দিয়েছে। তাই তাদের নিয়ে কথা বলার কোনো জায়গা নেই।

দলীয় প্রার্থী ও নেতাকর্মীদের নির্বাচনী আচরণবিধি কঠোরভাবে মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, জনগণের অংশগ্রহণে একটি ভালো নির্বাচন হবে। বিশেষ করে নারী ভোটারদের মধ্যে জাগরণ দেখা যাচ্ছে। এই নির্বাচন ভোটারবিহীন হবে না। 

এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আফম বাহাউদ্দীন নাছিম ও দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া।

সম্পাদক : জোবায়ের আহমেদ